• ২০২২ নভেম্বর ২৬, শনিবার, ১৪২৯ অগ্রহায়ণ ১২
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫০ অপরাহ্ন
  • বেটা ভার্সন
Logo
  • ২০২২ নভেম্বর ২৬, শনিবার, ১৪২৯ অগ্রহায়ণ ১২

কেমন হলো ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ দল, কার হাতে উঠবে ট্রফি?

  • প্রকাশিত ৪:৫৫ অপরাহ্ন মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৫, ২০২২
কেমন হলো ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ দল, কার হাতে উঠবে ট্রফি?
সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

কাতারে শুরু হতে যাওয়া ফুটবল বিশ্বকাপে ফেবারিট কারা এ নিয়ে এরই মধ্যে চলছে নানা বিতর্ক। কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলের আর মাত্র কয়েক মুহূর্ত বাকি। ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’-এর জন্য দিন গুনছে ফুটবল বিশ্ব।

অনেকেই বিশ্বকাপের ফেবারিট তালিকায় রাখছেন ব্রাজিল-আর্জেন্টিনাকে। বিশ্বকাপ উন্মাদনা এরই মধ্যে দেখা যাচ্ছে। কোন দল ফেবারিট, সেরা চারে কাদের সম্ভাবনা- এসব নিয়ে তর্কটাও জমে ওঠেছে, বাকযুদ্ধ চলছে পৃথিবীজুড়ে।

টুর্নামেন্ট সামনে রেখে চলছে দল ঘোষণাও। এর মধ্যেই ২৬ জনের স্কোয়াড ঘোষণা করেছে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল ও দুইবারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।

ব্রাজিল

বড় দলের মধ্যে সবার আগে বিশ্বকাপের দল ঘোষণা করেছে ব্রাজিল। ২৬ জনের দলে বড় চমক নেই সে অর্থে। লিভারপুলের ইনফর্ম ফরোয়ার্ড রবার্তো ফিরমিনো জায়গা পাননি, সেটা নিয়ে কথা হচ্ছে। নেই আর্সেনালের ডিফেন্ডার গ্যাব্রিয়েলও। এ ছাড়া মোটামুটি অনুমিতদেরই রেখেছেন তিতে।

গত এক বছরে যাদের ঘুরিয়ে ফিরিয়ে খেলিয়েছেন, তাদের প্রায় সবাইকেই ডেকেছেন তিতে। এই দলের সবচেয়ে বড় শক্তি আক্রমণভাগ। রিয়ালের ভিনিসিয়াস ভিনিসিয়ুস, রদ্রিগো, পিএসজির নেইমার, ম্যান ইউনাইটেডের অ্যান্টনি, বার্সার রাফিনহা, আর্সেনালের জেসুস-মার্টিনেলি, টটেনহামের রিচার্লিসন- কমবেশি সবাই ক্লাব ফুটবলে ভালো সময় কাটাচ্ছেন। এর মধ্যে কয়জনকে বা কাকে তিতে খেলাবেন সেটাই প্রশ্ন। নেইমারসহ মোট চারজনকে বেঁছে নিতে পারেন তিতে। সেক্ষেত্রে মিডফিল্ডের স্পট দুইটি। সেখানে বিবেচনায় আছেন কাসেমিরো, ফ্রেড, গুমারেজ, ফাবিনিও, পাকেতারা।

তবে ব্রাজিলের মূল সমস্যা ফুলব্যাক। দানি আলভেস ৩৯ বছর বয়সে সবচেয়ে বেশি বয়সী ব্রাজিলিয়ান হিসেবে বিশ্বকাপে যাচ্ছেন। দানিলো, অ্যালেক্স সান্দ্রো, তেলেস কেউই এখন ঠিক টপ ফুলব্যাক নন। সেক্ষেত্রে মিলিতাওকে মেকশিফট ফুলব্যাক হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন তিতে।

ওদিকে সেন্ট্রাল ডিফেন্সের দুইটি জায়গা মোটামুটি পাকা। মার্কিনিওসের সাথে মিলিতাও খেলবেন, আর মিলিতাও রাইট ব্যাক হলে থিয়াগো সিলভা আছেন বিকল্প। আর গোলরক্ষক হিসেবে এলিসন আর বিকল্প এডারসন তো আছেনই।

ষষ্ঠ শিরোপায় চোখ রেখে ২৪ নভেম্বর সার্বিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে নিজেদের বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করবে ব্রাজিল। পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের আরেকটি বিশ্বকাপের অপেক্ষার ২০ বছর হতে চলল। সাম্প্রতিক সময়ে ইউরোপিয়ানদের দাপটে খুব বেশি সুবিধা করতে পারেনি সেলেসাওরা। ২০১৪ সালে নিজ দেশের বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে খেলায় ২০০২ সালের পর ব্রাজিলের সর্বোচ্চ অর্জন।

ব্রাজিলের ঘোষিত ২৬ জনের দল

গোলরক্ষক: অ্যালিসন, এডারসন, ওয়েভারটন।

ডিফেন্ডার: অ্যালেক্স সান্দ্রো, অ্যালেক্স টেলেস, দানি আলভেস, দানিলো, ব্রেমার, এদার মিলিতাও, মারকুইনহোস, থিয়াগো সিলভা।

মিডফিল্ডার: ব্রুনো গুইমারেস, ক্যাসেমিরো, এভারটন রিবেইরো, ফ্যাবিনহো, ফ্রেড, লুকাস পাকেতা।

ফরোয়ার্ড: অ্যান্টনি, গ্যাব্রিয়েল জেসুস, গ্যাব্রিয়েল মার্টিনেলি, নেইমার জুনিয়র, পেড্রো, রাফিনহা, রিচার্লিসন, রড্রিগো, ভিনিসিয়াস জুনিয়র

আর্জেন্টিনা

চোটের শঙ্কা থাকলেও আক্রমণভাগের দুই তারকা আনহেল দি মারিয়া ও পাওলো দিবালাকে নিয়ে আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ দল ঘোষণা দিয়েছেন কোচ লিওনেল স্কালোনি। শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে আর্জেন্টিনা ফুটবল ফেডারেশনের টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে এক ভিডিওতে ২৬ সদস্যের স্কোয়াড ঘোষণা করেন তিনি।

আর্জেন্টিনার স্কোয়াডে চমক তেমন একটা নেই। সংশয় থাকলেও লিওনেল মেসিদের সঙ্গে কাতারে যাচ্ছেন হুয়ান ফয়েথও। আছেন হোয়াকিন কোরেয়াও। তবে চোটের কারণে ছিটকে গেছেন মিডফিল্ডার জিওভান্নি লো সেলসো।

দু'বারের চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা তাদের প্রাথমিক দলের ৪৬ জন ফুটবলার থেকে প্রথমে ১৫ জনকে কমিয়ে ৩১ জনের দল ঘোষণা করে। এই ৩১ জন থেকে আরো ৫ জন বাদ দিয়ে ২৬ জনের চূড়ান্ত দল ঘোষণা করেছে আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি।

২০ নভেম্বর শুরু হতে যাওয়া কাতার বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার প্রথম ম্যাচ ২২ নভেম্বর, প্রতিপক্ষ সৌদি আরব। ‘সি’ গ্রুপে তাদের অপর দুই প্রতিপক্ষ মেক্সিকো (২৬ নভেম্বর) ও পোল্যান্ড (৩০ নভেম্বর)।

আর্জেন্টিনার ঘোষিত ২৬ জনের দল

গোলরক্ষক: এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, জেরোনিমো রুলি ও ফ্রাঙ্কো আরমানি।

ডিফেন্ডার: নাহুয়েল মোলিনা, গঞ্জালো মন্টিয়েল, ক্রিস্টিয়ান রোমেরো, জার্মান পেজেলা, নিকোলাস ওটামেন্ডি, লিসান্দ্রো মার্টিনেজ, মার্কোস আকুনা, নিকোলাস ট্যাগলিকাফিকো ও জুয়ান ফয়েথ।

মিডফিল্ডার: রদ্রিগো ডি পল, লিয়ান্দ্রো পেরেস, অ্যালেক্সিস ম্যাকঅ্যালিস্টার, গুইডো রদ্রিগেজ, আলেজান্দ্রো গোমেজ, এনজো ফার্নান্দেজ ও এক্সকুয়েল প্যালাসিওস।

ফরোয়ার্ড: লিওনেল মেসি, অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া, লটরাও মার্টিনেজ, জুলিয়ান আলভারেজ, পাওলো দিবালা, নিকোলাস গঞ্জালেজ ও জোয়াকিন কোরেয়া।

বিশ্বকাপে সবচেয়ে সফল দল ব্রাজিল। সর্বোচ্চ পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন তারা। সবশেষ সাফল্য এসেছে দুই দশক আগে। ২০০২ সালের পর ফাইনাল খেলার সৌভাগ্য হয়নি সেলেকাওদের। চতুর্থ হয়েছে ২০১৪ সালে। নেইমারের প্রজন্মে এটাই সবচেয়ে বড় আক্ষেপ ব্রাজিলিয়ানদের। আর্জেন্টাইনদের দুঃখ আরও বেশি। দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা সবশেষ বিশ্বকাপ জিতেছে ১৯৮৬ সালে। ২০১৪ বিশ্বকাপে দলকে ফাইনালে তুলেছিলেন লিওনেল মেসি, কিন্তু ফিরতে হয়েছে রানার্সআপ ট্রফি নিয়ে। তবু লাতিন অঞ্চলের দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীকে কাতারে ফেবারিট মানছেন অনেকে।


সর্বশেষ