• ২০২২ নভেম্বর ২৬, শনিবার, ১৪২৯ অগ্রহায়ণ ১২
  • সর্বশেষ আপডেট : ১১:৫০ অপরাহ্ন
  • বেটা ভার্সন
Logo
  • ২০২২ নভেম্বর ২৬, শনিবার, ১৪২৯ অগ্রহায়ণ ১২

ইঞ্জিন ত্রুটি সাড়ার পর শনিবার নতুন চন্দ্রযান রকেট উৎক্ষেপণের লক্ষ্য নির্ধারণ: নাসা

  • প্রকাশিত ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন শনিবার, সেপ্টেম্বর ০৩, ২০২২
ইঞ্জিন ত্রুটি সাড়ার পর শনিবার নতুন চন্দ্রযান রকেট উৎক্ষেপণের লক্ষ্য নির্ধারণ: নাসা
সংগৃহীত
নিজস্ব প্রতিবেদক

মার্কিন মহাকাশ সংস্থা (নাসা) আজ (শনিবার) পরীক্ষামূলক উড্ডয়নের জন্য নতুন চন্দ্রযান রকেটটি উৎক্ষেপণ করতে যাচ্ছে। সোমবারের প্রথম চেষ্টা ব্যর্থ হওয়ার পর ইঞ্জিন ট্যাংকের ছিদ্রজনিত সমস্যা ও ইঞ্জিনের একটি খারাপ সেন্সর ঠিক করা হয়েছে।

৩২২ ফুট উচ্চতার নাসার এ যাবৎকালের সবচেয়ে শক্তিশালী রকেটটি কেনেডি স্পেস সেন্টারের স্টেশনেই নভোচারীবিহীন দাঁড়িয়ে আছে। নাসার ব্যবস্থাপকরা তাদের পরিকল্পনায় আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন এবং অনুকূল আবহাওয়ার পূর্বাভাসের কথা জানিয়েছেন। তাই কেনেডি স্পেস সেন্টারে রকেটটির উৎক্ষেপণের ঘড়ি আবার শুরু করা হয়েছে।

নাসার প্রশাসক বিল নেলসন জানিয়েছেন, তিনি এই দ্বিতীয় উৎক্ষেপণ চেষ্টায় যেতে আগের চেয়েও আত্মবিশ্বাসী। কারণ প্রকৌশলীরা প্রথম চেষ্টা থেকে সবকিছু জেনে নিয়েছে।

নভোচারী জেসিকা মেয়ারও তাই মনে করেন। নাসার প্রাথমিক চন্দ্রাভিযানের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জেসিকার নাম রয়েছে।

শুক্রবার জেসিকা এপিকে বলেছেন, ‘এই যাত্রার জন্য আমরা সবাই উত্তেজিত। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, আমরা তখনই যাব যখন আমরা প্রস্তুত এবং আমরা এটিকে ঠিকভাবে পাব। কারণ পরের মিশনে মানুষ থাকবে। আমিও থাকতে পারি, অথবা আমার বন্ধুদের মধ্যে কেউ।’

রকেটটিতে যে চারটি ইঞ্জিন রয়েছে তার একটি উৎক্ষেপণের আগে ইঞ্জিন চালু করার সময় পর্যাপ্ত ঠান্ডা হচ্ছিল না। হানিকাটের মতে হাইড্রোজেন জ্বালানির তাপমাত্রা প্রয়োজন ছিল মাইনাস ২৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কিন্তু তার চেয়েও পাঁচ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেশি তাপমাত্রা দেখাচ্ছিল। তবে অন্য ইঞ্জিনগুলো ঠিক ছিল।

রকেটটির প্রোগ্রাম ম্যানেজার জন হানিকাট বলেন, ‘আমরা নিজেদেরকে নিশ্চিত করতে পেরেছি যে ইঞ্জিনগুলোতে জ্বালানি হিসেবে ভালো মানের তরল হাইড্রোজেন রয়েছে।’

হানিকাট আরও বলেন, শনিবার সকালে ইঞ্জিন জ্বালানি দিয়ে ভর্তি করা হলে উৎক্ষেপণ দল সময়ের আগেই ইঞ্জিন পরখ করে দেখবে। সমস্যা তৈরি করা সেন্সরটি যদি আবারও অতিরিক্ত তাপমাত্রার পাঠ দেয় তবুও অন্যান্য সেন্সর থেকে ইঞ্জিনের তাপ ব্যবস্থা সম্পর্কে জানা যাবে এবং এর ফলে সমস্যা হলে উৎক্ষেপণ বন্ধ করতে হবে কি-না তা জানা যাবে।

নেলসন বলেন, ‘এটি একটি অত্যন্ত জটিল মেশিন ও সিস্টেম, সেখানে রয়েছে লাখ লাখ যন্ত্রাংশ। প্রকৃতপক্ষে এখানে ঝুঁকি রয়েছে। কিন্তু এই ঝুঁকিগুলো কি গ্রহণযোগ্য নয়? আমি বিষয়টি বিশেষজ্ঞদের ওপর ছেড়ে দিয়েছি। আমার ভূমিকা হচ্ছে তাদের মনে করিয়ে দেয়া যে আপনি এমন কোনো সুযোগ গ্রহণ করবেন না যা গ্রহণযোগ্য ঝুঁকি নয়।’

গ্রীক পুরাণ অনুসারে ৪১০ কোটি মার্কিন ডলারের এই পরীক্ষামূলক অভিযানের নাম দেয়া হয়েছে আর্টেমিস। যার সফলতার ওপর নির্ভর করছে নভোচারীদের ২০২৪ সালে চাঁদের কক্ষপথে প্রদক্ষিণ এবং ২০২৫ সালে চাঁদে অবতরণ।


সর্বশেষ